রক্তাক্ত বর্ণমালা

আলতামাস পাশা লেখাটি পড়েছেন 33 জন পাঠক।
 বর্ণমালারা জীবন্ত হয়-
বর্ণ পরিচয়ের বুক থেকে অ, আ, ই, ঈ প্রতিবাদে সোচ্চার;
রাজপথে ঠাঁই নেয় প্রতিবাদী বর্ণমালা সব; 
মিছিলে মিছিলে ভঙ্গ করে শাসকের জারি করা আইন।

রক্তাক্ত বর্ণমালা সব শহীদের নাম লিখে দেয় কৃষ্ণচূড়া পলাশের রক্তমাখা শাখায় শাখায়। 

পাখিদের করুণ গানে বিষণ্ণ হয় হিমমাখা ফাগুনের প্রথম প্রহর।
এখনো আমরা জানি ‘মা’র মতো শুদ্ধ আর কোনো শব্দ নেই, যদি তার মর্যাদা দিতে পারি;

বর্ণমালার মতো আর কোনো সুন্দর নেই, যদি মনের কথা বলতে পারি;
ভাষার জ্ঞানের মতো আর কোনো আলো নেই, যদি তার প্রজ্ঞায় দীক্ষিত হতে পারি। 

নিজের ভাষার মতো আর কোনো পবিত্র কিছু নেই; জনপদে, লোকালয়ে অথবা পাহাড়ের সবুজ ঢাকা গ্রামে:

যেখানে ৬৮ পাহাড়ি বর্ণমালা খেলা করে রোদ, বৃষ্টি ঝড়ে।
সাম্পানে ভাসমান বর্ণমালা কখনও রক্তাক্ত হয়, কখনও হয় প্রতিবাদী,
অথবা কখনও মুক্তি খোঁজে ফুলের তোড়া আর শহীদ মিনারে অভ্যাসগত শ্রদ্ধ্যা নিবেদনকারী মানুষগুলো থেকে।

পাঠকের মন্তব্য


একই ধরনের লেখা, আপনার পছন্দ হতে পারে

bdjogajog