সাম্প্রতিক প্রকাশনা

গ্রেট এক্সপেক্টেশন (মূল উপন্যাস: চার্লস ডিকেন্স) দশম পরিচ্ছেদ

আলতামাস পাশা লেখাটি পড়েছেন 198 জন পাঠক।
 দশম পরিচ্ছেদ

পিপ শেষ পর্যন্ত জো‘র কাজে লেগেছে।

শিক্ষানবিশী করছে সে- হাতে কলমে শিখছে কামারের ছোটবড় সব কাজকর্ম।

গত চার বছর ধরে সে এই কাজে ব্যস্ত রয়েছে।

‘দি থ্রি জলি বার্জমেন।’
জো, পিপ- এরা দু-জন প্রায়ই যায় এই সরাইখানায়।

সেদিনও তারা গেছে।

সেদিন সরাইখানাতে একজন বয়োবৃদ্ধ শহুরে ভদ্রলোক এসে প্রবেশ করলেন।

তিনি অনেকক্ষণ ধরে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পিপকে লক্ষ্য করতে লাগলেন।

তারপর সোজা হেটে গেলেন জো’র পাশে। জিজ্ঞেস করলেন তাকে,

‘আপনাদের মধ্যে একজন নিশ্চয়ই জোসেফ গারগেরি, কামার; দয়া করে বলুন দেখি, কে তিনি?

জোসেফ আরও কাছে সরে এলো। বললো,

আমিই জোসেফ, আপনার কি দরকার?

আগন্তুক বললেন,

আপনার কাছে একটি ছেলে শিক্ষানবিশী করছে, তা নাম পিপ। কোথায় সে?

পিপ অতিমাত্রায় বিস্মিত হয়ে এগিয়ে এলো সামনে, বললো,

পিপ আমারই নাম।

ভদ্রলোকটি বলে গেলেন,
 
আমার নাম জাগারস। লন্ডনের সেরা আইনবিদদের মধ্যে আমিও একজন। আপনাদের সঙ্গে আমার কিছু গোপন আলাপ আছে।

কথা শুনে তো জো অবাক! পিপের মুখেও কোন কথা নেই।

তারা তিনজন সোজা চলে এলো কামারের বাড়িতে।

ভালো মতো বসে নিয়ে ভদ্রলোকটি তার কথা বলতে শুরু করলেন।

আমি এক ভদ্রলোকের দূত হিসেবেই এখানে এসেছি। এখন সাফ বলুন তো পিপের ভালো হবে, আপনি এমন কিছুর প্রতিবন্ধক হতে চাইবেন কি?
না।

কামার জো‘র মুখে সোজা জবাব শুনে ভদ্রলোকটিও খুশি।

তিনি বললেন,

এখন আমার কথাবার্তা হবে পিপের সাথে। যাঁর দূত হিসেবে আমি এখানে এসেছি, তাঁর কথা হলো ‘পিপ, তোমার জন্য সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ প্রতীক্ষা করছে।’ 

জো আর পিপ নির্বাকমুখে শুনে যেতে লাগলো। 

মি. জাগারস তখন বললেন,

আমার কর্তা লোকটির হুকুম হলো পিপকে এখুনি তার বর্তমান পরিবেশ থেকে সরিয়ে নিয়ে যেতে হবে, তাকে হতে হবে আধুনিক শিক্ষাপ্রাপ্ত কেতাদুরস্ত ভদ্রলোক। কারোর এতে কোন আপত্তি আছে?

পিপ বললো,

‘না।’

বেশ । তোমার উপকারী মহান ভদ্রলোকটির নাম তোমাকে জানতে দেয়া হবে না।

অন্ততপক্ষে, তিনি নিজে যে পর্যন্ত না তাঁর মত পরিবর্তন করছেন, অবশ্য সে কথা আলাদা বিষয়।

তোমাকে পিপ নামেই বড় হতে হবে।

রাজী?

‘রা  রাজী।’

মি. জাগারস উঠে পড়লেন। 

পকেট থেকে একটি থলে বার করে এক সঙ্গে অনেকগুলো নোট টেবিলের উপর ছড়িয়ে ফেললেন তিনি। 

মুখে বললেন,

লন্ডনে যেতে হলে নতুন জামা কাপড় লাগবে তোমার।

এগুলো সে জন্যে। তাছাড়া তোমার হাতে কিছু নগদ টাকা পয়সা থাকা দরকার।

এতো টাকা একসঙ্গে জো ও দেখেনি কখনও। 

পিপের মুখেও কথা নেই।

জো সব খুলে বললো বিডিকে।

বিডি বললো,

পিপ তো এই চেয়েছিলো। এতোদিনে তার মনের ইচ্ছা পূর্ণ হলো।

মি. জাগারসকে সে জিজ্ঞেস করলো পিপ কবে যাবে?

মি. জাগারস বললেন,

পাঁচ দিন পরে। আর পাঁচ দিনের মধ্যে রওয়ানা হলেই চলবে।   (চলবে)

পাঠকের মন্তব্য


একই ধরনের লেখা, আপনার পছন্দ হতে পারে

bdjogajog