ভালকানের স্বপ্ন

বিস্তারিত পড়ুন

ভালকানের স্বপ্ন

আলতামাস পাশা

প্রথম পরিচ্ছেদ এক সপ্তাহের জন্য জার্মানির হ্যাননোভ্যাওে এসেছি সিভিট প্রযুক্তি মেলায় যোগ দিতে। হাতে সময় থাকলে হামবুর্গ ঘুরে যাবার ইচ্ছে রয়েছে। সিবিট মেলায় আলাপ হলো জনাথন নাসে এক কম্পিউটার বিজ্ঞানীর সঙ্গে। আলাপের শুরু থেকেই সে কোন দেশের নাগরিক তা নিয়ে মনে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হল। নিজেকে জনাথন লুথিনিয়ার নাগরিক বলে পরিচয় দিলেও কোথায় যেন একটি অমিল খুঁজে পাচ্ছিলাম। ইউরোপের কোন অংশের মানুষের চোখই এতো গভীর কালো হয় না। অথচ জনাথনের চোখদুটি অদ্ভুত গভীরতায় ভরা আর চোখের মনি কালো রঙে। এখানে বলে রাখি যে, সিবিট মেলা সেই ১৯৮৬ সাল থেকে আইটি পণ্য ও সার্ভিসের এক অনবদ্য উপস্থাপন...

বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

বিস্তারিত পড়ুন

বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

আলতামাস পাশা

তৃতীয় পরিচ্ছেদ ওঝি মান্ডার চোখেমুখে ফুটে উঠেছে আশংকার ভাব। চোখ দুটি যেন ফেটে বেড়িয়ে আসতে চাচ্ছে। কিন্তু বিন্দুমাত্র হতাশ হননি। অকস্মাৎ তার চোখে পড়লো, সামনেই মুহ্যমানের মতো বসে আছেন মিনহাজ সাহেব, দু’হাতে মাথা চেপে ধরে। একটা কম্বলের ওপর শুয়ে রয়েছে সেলিম। শরীরটাও তার আরেকটা কম্বলে ঢাকা। কাছে গিয়ে ওঝি মান্ডা দেখতে পেলেন কম্বল নয় আলট্রা থিন মহাজাগতিক রশ্নি প্রতিরোধক তন্তু দিয়ে সেলিমকে ঢেকে রাখা হয়েছে। - মিনহাজ সাহেব- ওঝি মান্ডা ধীর কন্ঠে ডাকলেন। কিন্তু মিনহাজ সাহেব ওঝি মা-ার আবির্ভাব সত্ত্বেও কোনো কথা বললেন না, মুখ তুলেও চাইলেই না। শুধু ব্যথা কাতর মুখে বললেন, - ও...

বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

বিস্তারিত পড়ুন

বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

আলতামাস পাশা

বাতওয়ালের ক্ষুধা দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ গত কয়েকদিন ধরে লাল আলোটা বারবার পারভেজের আশপাশে খেলা করে বেড়াচ্ছে। যদিও এ আলোর একটি ব্যাখ্যা দৈনিক পত্রিকাগুলোতে ছাপা হয়েছে। তবু তা পারভেজের মনের কৌতূহল দমাতে পারে নি। পারভেজের দেখা লাল আলো আর ঢাকা শহরে হঠাৎ হঠাৎ দেখতে পাওয়া লেসার গানের লাল আলোর কারসাজির মধ্যে কোথায় যেন একটি বিরাট ফারাক রয়েই যাচ্ছে। পারভেজের দেহের ওপর যতবার এ লাল আলো এসে পড়েছে ততবার সে তার চোখের সামনে অদ্ভূত সব ছবি দেখতে পেয়েছে। মনে হয়েছে, কানের কাছে কারা যেন অজানা ভাষায় কথা বলতে চাইছে। ইদানিং এ লাল আলোর উৎপাত পারভেজের মাথা খারাপ করার অবস্থা করেছে। পারভেজ ...

অবশেষে  প্লুটোর জয়

বিস্তারিত পড়ুন

অবশেষে প্লুটোর জয়

আলতামাস পাশা

প্রথম অধ্যায় ছুটি কাটাতে বন্ধুর কাছে এসেছে জোসেফ। ছেলেবেলার বন্ধু নাহিদ কাজ কওে পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায়। এখানে রাঙামাটির টংকাবতিতে রয়েছে বিশাল একটি রেডিও টেলিস্কোপ। এর মাধ্যমে মহাশূন্যের কোটি কোটি আলোকবর্ষ দূরের গ্রহনক্ষত্রের পাঠানো রেডিও টেলিস্কোপিক সিগন্যাল গ্রহণ করা হয়। তারপর বিশ্লেষণ করে দেখা হয় প্রাকৃতিক রেডিও সিগন্যাল ছাড়াও অন্য কোন রেডিও সিগন্যাল এসে পৌঁছে কিনা। রাঙামাটির এই রেডিও টেলিস্কোপটি মহাকাশে বুদ্ধিমান প্রাণীর অনুসন্ধান করে চলেছে। মূল অবজারভেটরি ছোট পাহাড়ের উপর অবস্থিত। ছোট একটি শহর এখানে গড়ে উঠেছে। রয়েছে সুপার রেলস্টেশ...

বাতওয়ালের ক্ষুধা বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

বিস্তারিত পড়ুন

বাতওয়ালের ক্ষুধা বাতওয়ালের ক্ষুধা (ধারাবাহিক সায়েন্স ফিকসন বা বিজ্ঞান কল্প কাহিনী)

আলতামাস পাশা

বাতওয়ালের ক্ষুধা প্রথম অধ্যায় সেবার উড়িষ্যার বিড়িগড় পাহাড়ের নির্জনতম বনাঞ্চলে এক অদ্ভুত কাণ্ড ঘটে গেল-যা বিশ্বাসের বাইরে- যা কেউ কল্পনা করতেও পারবে না। বিশ্বাস তো দূরের কথা। শিকারের বাতিক রয়েছে ধনকুবের শিল্পপতি মিনহাজ সাহেবের। ভারত সরকারের অনুমতি নিয়ে শিকারের গেলেন তিনি উড়িষ্যায়। সঙ্গে একমাত্র ছেলে সেলিম। সেও বাপের মতো শিকারী। এছাড়া দলে আছে আরও তিনজন। ছোট একটি মশাল জ্বেলে তারা দু’জন- মিনহাজ সাহেব আর সেলিম কথা বলছিলেন। সুপার চার্জার লাইটের চার্জ শেষ হয়ে যাওয়াতে তারা মশাল জ্বালতে বাধ্য হয়েছেন। মিনহাজ সাহেবের মুখ শুকিয়ে গেছে। ফোলাফোলা চোখ। শরীরে তিনি বিপ...

bdjogajog